1. admin@sottosongbad.com : admin :
দেশে একবছরে দুধের উৎপাদন বেড়েছে ১৩ লাখ মেট্রিক টন। - রংপুর বার্তা
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন

দেশে একবছরে দুধের উৎপাদন বেড়েছে ১৩ লাখ মেট্রিক টন।

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২ জুন, ২০২২
  • ৯০ বার পঠিত

দেশে একবছরে দুধের উৎপাদন বেড়েছে ১৩ লাখ মেট্রিক টন।

পুষ্টি ও আর্থসামাজিক ক্ষমতায়নে টেকসই ডেইরী সেক্টর’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারাদেশে আজ বুধবার (১ জুন) পালিত হবে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস ২০২২। বিশ্বের অন্যান্যদেশের মতো বাংলাদেশেও দুগ্ধ দিবস পালন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ দিনকে কেন্দ্র করে সারা দেশে অর্থাৎ দেশের ৬১ টি জেলায় প্রচারণা, আলোচনা সভা, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন, টক শো, মেলা, শিক্ষার্থীদের দুগ্ধ পান, ডেইরী আইকন-২০২১ পুরষ্কার দেযা হবে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে দুধের মূল উৎস গরু। ৯০ শতাংশ দুধ আসে গরু থেকে, আট শতাংশ আসে ছাগল থেকে এবং দুই শতাংশ আসে মহিষ থেকে। ১৯৮৯-৯০ থেকে ২০০১-০২ অর্থবছর পর্যন্ত দুধের উৎপাদন বৃদ্ধির হার ২.৪ শতাংশ, ২০০৯-১০ থেকে ২০১৯-২০ অর্থবছর পর্যন্ত দুধের উৎপাদন বৃদ্ধির হার ১৬.৪৪ শতাংশ। ২০০৯-১০ অর্থবছরে দুধের উৎপাদন ছিল ২৩.৭০ লাখ টন, যা ২০১৯-২০ অর্থবছরে উন্নীত হয়েছে ১০৬.৮০ লাখ টনে।

বর্তমানে মাথাপিছু দৈনিক ২৫০ মিলিলিটার দুধের চাহিদার বিপরীতে পাওয়া যাচ্ছে ১৯৩.৩৮ মিলিলিটার। ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১৫২.০২ লাখ টন চাহিদার বিপরীতে দুধ উৎপাদন হয় ১০৬.৮০ লাখ টন।২০২০-২০২১ অর্খবছরে৷ মোট চাহিদা ১৫৪.৯৪ লাখ মে.টন বিপরীতে উৎপাদন ১১৯.৮৫ লাখ মে.টন। জন প্রতি প্রাপ্যতার দিক দিয়ে দিনে ১৯৩.৩৮ মিলি. এহিসেবে দেশের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে ১৩.০৫ লাখ মে.টন।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতর সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশে ক্রমবর্ধমান জিডিপিতে প্রাণিসম্পদের অবদান ৩ দশমিক ২১ শতাংশ। দুধ থেকে বিভিন্ন উপায়ে আধুনিক প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে নানা ধরনের দুগ্ধজাত দ্রব্য উৎপাদন করা হচ্ছে যার সাথে জড়িত আছে বিশাল শ্রমশক্তি। দেশের মোট কর্মসংস্থানের প্রত্যক্ষভাবে ২১ শতাংশ এবং পরোক্ষভাবে ৫০ শতাংশ প্রাণিসম্পদের উপর নির্ভরশীল।

মোট আমিষের ৮ শতাংশ আসে দুগ্ধ সেক্টর থেকে। গত দশ বছরে দেশে দুধ উৎপাদন বেড়েছে প্রায় পাঁচগুণ। ডেইরি ইন্ডাস্ট্রি এখন দেশের প্রতিষ্ঠিত শিল্প। এই ইন্ডাস্ট্রি দেশের মানুষের পুষ্টি, খাদ্য নিরাপত্তা ও দারিদ্র্য বিমোচনে যে অবদান রাখছে, তা অনস্বীকার্য।

এ দিবসকে কেন্দ্রকরে সারা দেশেই নানা কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। কর্মসূচির মধ্যে দেশের প্রকল্পভূক্ত ৬১টি জেলায় জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের নেতৃত্বে ১লা জুন বিশ্ব দুগ্ধ দিবস পালনে র‌্যালী, প্রচার প্রচারণা, এক বা একাধিক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়/এতিমখামানায় ছাত্রদের দুধ বা দুধের পণ্য খাওয়ানো, সভা/সেমিনার আয়োজন করা, রচনা বা কুইজ প্রতিযোগিতা আয়োজন করা, পুরস্কার বিতরণ করা ইত্যাদি কার্যক্রম রয়েছে।

কেন্দ্রীয় পর্যায়ে:

১লা জুন সকালে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস ২০২২ উপলক্ষে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী আয়োজন, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং বেসরকারি উদ্যোক্তা প্রতিনিধিগণ উক্ত র‌্যালীতে অংশ নেবেন। কেন্দ্রীয় পর্যায়ে ঢাকায় কেআইবি কনভেনশন হলে (নীচ তলায়) দিনব্যাপী প্রাণিজাত পণ্য প্রদর্শনী আয়োজন করা হবে। যেখানে দেশের খ্যাতনামা ও অন্যান্য নতুন নতুন উদ্যোক্তাগণ অংশ নেবেন এবং দিনশেষে মূল্যায়ন সাপেক্ষে তিনটি স্টলকে পুরস্কৃত করা হবে।

কেআইবি অডিটোরিয়ামে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস ২০২২ উদযাপন ও ডেইরী আইকন সেলিব্রেশন উপলক্ষে ১টি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। শ ম রেজাইল করিম মন্ত্রী, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রনালয় প্রধান অতিথি, ড. মোহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী, সম্মানিত সচিব, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রনালয় বিশেষ অতিথি, বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র এগ্রিকিালচার এক্সপার্ট ক্রিশ্চিয়ান বার্জার এবং জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার প্রতিনিধি রবার্ট সিম্পসন গেস্ট অব্ অনার হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। সভাপতিত্ব করবেন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, ডাঃ মনজুর মোহাম্মদ শাহজাদা।

ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ স্পটে রোডসাইড ব্রান্ডিং করা, বিজ্ঞাপণ প্রচার, ১টি টেলিভিশনে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস বিষয়ে টকশো আয়োজন করা হবে।

ডেইরী আইকন-২০২১ পুরস্কার

ডেইরী আইকন-২০২১ হিসেবে ৩৯ জন ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানকে এ পুরস্কৃত দেয়া হবে। চারটি ভিন্ন ভিন্ন ক্যাটেগরীতে সর্বমোট ৩৯ জন উদ্যোক্তা এই পুরস্কার পাবেন। প্রতিটি পুরস্কারের মূল্যমান এক লক্ষ টাকা। এছাড়াও ক্রেস্ট ও সনদ প্রদান করা হবে।

গরু ও ছাগল উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ। দুধ উৎপাদনের বৈশ্বিক সূচকেও কয়েক বছর ধরে এ দেশের ধারাবাহিক অগ্রগতি অব্যাহত রয়েছে। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বেশ কয়েক বছর ধরে ছাগলের দুধ উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থান ধরে রেখেছে। তবে মোট দুধ উৎপাদনে দেশের অবস্থান বিশ্বে ২৩তম। গরুর দুধ উৎপাদন গত ১০ বছরে বেড়েছে প্রায় পাঁচ গুণ।

খামারিরাদের সঙ্গে কথাবলে জানাগেছে, কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন জনবলের অভাব, মানসম্পন্ন দুধ সরবরাহ না করা, ভেটেরিনারি চিকিৎসক সংকট, দুধ প্রক্রিয়াজাত ও সংরক্ষণ করতে না পারা, ন্যায্য মূল্য না পাওয়া এবং বিদ্যুতের মূল্য, গবাদিপশুর খাদ্যের দাম বৃদ্ধি দুগ্ধ উৎপাদন বাড়ানোর ক্ষেত্রে বড় অন্তরায়।

বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিডিএফএ) মহাসচিব শাহ এমরান বলেন, প্রতিনিয়ত বাড়ছে দুধের চাহিদা। ভারতে খামারিরা সরকারি ভর্তুকি পায়। বাংলাদেশে খামারিদের সহজ শর্তে ঋণ, বিপণন ও ভর্তুকি দিলে এ শিল্পে বিপ্লব ঘটবে।

দুধের বিপণন ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থানে ৩০০টি ভিলেজ মিল্ক্ক কালেকশন সেন্টার (ভিএমসিসি) স্থাপন করা হচ্ছে বলে জানান প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের কারিগরি বিশেষজ্ঞ মো. গোলাম রাব্বানী।

তিনি বলেন, দুগ্ধশিল্প উন্নয়নে সরকার চার হাজার ২৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

২০৩১ সালে ২০ মিলিয়ন টন এবং ২০৪১ সালে ৩০ মিলিয়ন টন দুধ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ করছি। আশা করি, ৮ থেকে ৯ বছরের মধ্যে দুধে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে উদ্বৃত্ত রাখতে পারব।

শিক্ষার্থীদের পান করানো হবে দুধ:

দুধের পুষ্টিগুন বিবেচনায় এবং শিশুদের দুগ্ধপানে উৎসাহিত করার জন্য ৬ টি স্কুলের শিক্ষার্থীদের দুধ পান করানো হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো হলো-

রাজধানী উচ্চবিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু বিদ্যা নিকেতন, শেরেবাংলা নগর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,আগারগাঁও তালতলা সরকারি প্রাথিমক বিদ্যালয়, তেজগাঁও আদর্শ স্কুল এন্ড কলেজ এবং শহীদ বুদ্ধিজীবী ড. আমিন উদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত  রংপুর বার্তা- ২০২২
Theme Customized By Dev Joynal