1. admin@sottosongbad.com : admin :
বর্গা শিক্ষক দিয়ে চলে পাঠদান , দেখার যেন কেউ নেই । - রংপুর বার্তা
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সুন্দরগঞ্জ উপজেলা পুষ্টি সমন্বয় কমিটির সভা হাতীবান্ধায় ভুয়া বিল ভাউচার দিয়েই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সরকারি টাকা আত্বসাৎ পা দিয়ে লিখে জিপিএ ৫ পেয়েছে ফুলবাড়ীর মানিক বারহাট্টায় বিএনপির ২৬২ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা -আটক ১ পাটগ্রামে কর্মসৃজন প্রকল্প কাজের উদ্বোধন আগামী ১ জানুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে ২৭তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা চাকরি দেয়ার জন্য টাকা নিয়ে অন্যজনকে নিয়োগ, মাদ্রাসায় তালা সুন্দরগঞ্জ বাজার দোকান মালিক সমিতির নির্বাচনে-সভাপতি-মিজান, সম্পাদক-লেলিন হাতীবান্ধায় সীমান্তে এক যুবককে বিএসএফের বন্দুকের বাট দিয়ে পিটিয়ে মারার অভিযোগ হানিফ কোচের ধাক্কায় সড়কে প্রাণ গেল বাবা-মা ও মেয়ের

বর্গা শিক্ষক দিয়ে চলে পাঠদান , দেখার যেন কেউ নেই ।

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৫ মে, ২০২২
  • ৭০ বার পঠিত

 

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলার দুর্গম মাকুমতৈছা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বর্গা শিক্ষক দিয়ে পাঠদান করানোর অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নাছমিন আক্তার সহ অন্য এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

স্থানীয়দের অভিযোগে , মাখুমতৈছা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চার জন শিক্ষক কর্মরত থাকলেও প্রমোদ ত্রিপুরা ও হ্যাপী আকতার ছাড়া অন্য দুইজন বিদ্যালয়ে অনিয়মিতভাবে যাওয়া আসা করেন মর্মে প্রমান পাওয়া যায় । সহকারী শিক্ষক জয়নিকা ত্রিপুরা বর্তমানে মাতৃত্বকালীন ছুটিতে থাকলেও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে উপস্থিত না থেকে সামান্য বেতনে রাখা একজন বর্গা শিক্ষক দিয়ে পাঠদান করাচ্ছেন বলে (সরেজমিনে) জানা যায় ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালের মাঝামাঝি এ বিদ্যালয়ে যোগদান করেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নাছমিন আক্তার । তিনি সরকারী বরাদ্ধে নয়-ছয় করার পাশাপাশি নানা অজুহাতে বিদ্যালয়ে অনুপুস্থিত থাকেন বলে এলাকাবাসীরা বলেন । এজন্য খগেশ্বর ত্রিপুরা নামে স্থানীয় এক যুবককে তিন হাজার টাকা মাসিক বেতনে বর্গা শিক্ষক হিসেবে রেখেছেন তিনি প্রধান শিক্ষক নাছমিন আক্তার । বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হ্যাপি আক্তার ও প্রমোদ ত্রিপুরার পাশাপাশি বর্গা শিক্ষক খগেশ্বর ত্রিপুরা পাঠদান করাচ্ছেন সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় ।

পরে সেখানেই কথা হয় বর্গা শিক্ষক খগেশ্বর ত্রিপুরার সাথে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাছমিন আক্তার মাঝে মাঝে বিদ্যালয়ে আসেন জানিয়ে দায়িত্বরত বর্গা শিক্ষক খগেশ্বর ত্রিপুরা বলেন, নাছমিন ম্যাডামই আমাকে স্কুলে পড়ানোর জন্য রেখেছেন। এজন্য আমাকে মাসে তিন হাজার টাকা দেন বলেও জানান তিনি ।

এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মিতাই ত্রিপুরা বলেন , ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের গাফেলতির কারনে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠি অধ্যুষিত মাখুমতৈছা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্বক ভাবে ব্যহত হচ্ছে। এতে প্রাইমারির গন্ডি পার হওয়ার আগেই ঝরে পড়েছে শিশুরা। ওই শিক্ষকের অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়টি দ্রুত সুরাহা না হলে দুর্গম জনপদের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়তে পারে। এ বিষয়ে পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।

বর্গা সিক্ষক রাখার বিষয়ে কর্তপক্ষের অনুমোদন আছে কিনা জানতে চাইলে বিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নাছমিন আক্তার কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। তিনি বলেন, এলাকার ভালোর কথা চিন্তা করেই নিজের টাকা দিয়ে তাকে রেখেছেন।

বর্গা শিক্ষক দিয়ে পাঠদান করার বিষয়টি জানেন না ” জানিয়ে মাটিরাঙ্গার ভারপ্রাপ্ত উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মঞ্জুর মোর্শদ জানান, এধরণের কোন অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত  রংপুর বার্তা- ২০২২
Theme Customized By Dev Joynal